Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, जुलाई 21, 2018 | समय 13:02 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

আপডেট...কর্ণাটক বিধায়সভায় শনিবার আস্থা ভোট, নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

By HindusthanSamachar | Publish Date: May 18 2018 2:50PM
আপডেট...কর্ণাটক বিধায়সভায় শনিবার আস্থা ভোট, নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের
নয়াদিল্লি, ১৮ মে (হি.স.): নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণা থেকে শুরু, প্রতি মুহূর্তে নাটকীয় মোড় নিচ্ছে কর্ণাটকের রাজনীতি| এবার সুপ্রিম কোর্টের তরফে শনিবার বিকেলে কর্ণাটক বিধানসভায় বিজেপিকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে| শনিবার বিকেল চারটে নাগাদ কর্ণাটক বিধানসভায় ‘আস্থা ভোট’-এর নির্দেশ দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত| শীর্ষ আদালতের নির্দেশ, বিকেল চারটের আগেই শেষ করতে হবে বিধায়কদের শপথগ্রহণ পর্ব| তারপর কার্যনির্বাহী অধ্যক্ষ নিয়োগের পালা| ঠিক চারটের সময় বিধানসভার নিয়ম মেনে আস্থা ভোট আয়োজিত হবে| ব্যবহার করা যাবে না গোপন ব্যালট| এমনকি সভাগৃহের ভিতরে তোলা যাবে না ছবি| নিরাপত্তার ব্যবস্থায় থাকবেন স্বয়ং ডিজিপি| যদিও, ফ্লোর টেস্ট নিয়ে প্রবল আত্মবিশ্বাসী গেরুয়া শিবির| শীর্ষ আদালতের রায়ের প্রেক্ষিতে কৃষক দরদী নেতা হিসেবে পরিচিত বি এস ইয়েদুরাপ্পা জানিয়েছেন, ‘সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করার ক্ষেত্রে আমরা একশো শতাংশ আত্মবিশ্বাসী|’ ইয়েদুরাপ্পা জানিয়েছেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মতো, শনিবার সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করবো আমরা| আগামীকাল সকাল এগারোটা নাগাদ বিধানসভার অধিবেশন ডাকার জন্য রাজ্যপালকে ফাইল পাঠাচ্ছি আমরা|’ শুধু ইয়েদুরাপ্পা নন, আস্থা ভোট নিয়ে প্রবল আত্মবিশ্বাসী বিজেপি নেত্রী শোভাও| তিনি জানিয়েছেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের রায়কে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি| আমরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করবো| ফ্লোর টেস্টের জন্য আমরা প্রস্তুত|’ অন্যদিকে, সুপ্রিম কোর্টের রায়ে খুশি প্রকাশ করল কংগ্রেস| কংগ্রেস নেতা তথা আইনজীবী অভিষেক মনু সিংঘি জানিয়েছেন, ‘ঐতিহাসিক রায় সুপ্রিম কোর্টের| অনেক গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে| তার মধ্যে অন্যতম হল, শনিবার বিকেল চারটে নাগাদ প্রোটেম স্পিকারের তত্ত্বাবধানে ফ্লোর টেস্ট হবে|’ আবার কংগ্রেস নেতা অশ্বিনী কুমার জানিয়েছেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের রায় সাংবিধানিক নৈতিকতা ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে| এই রায়ের প্রেক্ষিতে উদযাপন করা উচিত|’ কর্ণাটক রাজনীতিতে যাবতীয় নাটকের সূত্রপাত বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার দিন থেকে| দিনভর নতুন নতুন মোড়| সকাল থেকে দুপুর-টানা এগিয়ে থেকে সরকার গড়ার আশায় ছিল বিজেপি| কিন্তু, দুপুরের পর থেকেই বদলে যায় ছবি| বিজেপি একক বৃহত্তম দল হলেও, মাত্র ৮ আসনের জন্য গেরুয়া শিবির ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছতে পারেনি| এমন পরিস্থিতিতে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী বি এস ইয়েদুরাপ্পাকে গত বুধবার রাত ন’টা নাগাদ চিঠি পাঠান কর্ণাটকের রাজ্যপাল ভাজুভাই ভালা| কর্ণাটকে সরকার গড়তে বিজেপিকে আমন্ত্রণে, রাজ্যপালের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় কংগ্রেস ও জনতা দল (এস)| আবেদন ছিল দু’টি, প্রথমত বৃহস্পতিবারের শপথগ্রহণের উপর স্থগিতাদেশ দেওয়া হোক| দ্বিতীয়ত, সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের জন্য ইয়েদুরাপ্পাকে যে ১৫ দিন সময় দিয়েছেন রাজ্যপাল, তা কমানো হোক| আর্জির গুরুত্ব বিবেচনা করে মধ্যরাতেই শুনানিতে রাজি হয় সর্বোচ্চ আদালত| প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রর সঙ্গে কথা বলার পর, রাত দেড়টা নাগাদ শীর্ষ আদালতে আসেন তিন বিচারপতি, যথাক্রমে অর্জন কুমার সিক্রি, শরদ অরবিন্দ বোবদে ও অভয় মনোহর সাপ্রে| প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টা ধরে শুনানি চলার পর, সর্বোচ্চ আদালত জানিয়েছে, বি এস ইয়েদুরাপ্পা কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিলেও সরকার গঠন নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে মামলার শুনানি শেষে| শুক্রবার এই মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ছিল| এদিন সর্বোচ্চ আদালত নির্দেশ দিয়েছে, শনিবার বিকেলে কর্ণাটক বিধানসভায় বিজেপিকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে হবে| পাশাপাশি একজন অ্যাংলো ইন্ডিয়ান বিধায়ককে বিধানসভায় মনোনিত করা নিয়ে রাজ্যপালের সিদ্ধান্তের চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিল কংগ্রেস| এদিন তার উপরও স্থগিতাদেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট| এদিন সর্বোচ্চ আদালতে কংগ্রেসের হয়ে সওয়াল করতে পৌঁছন কপিল সিব্বল| বিজেপির হয়ে সওয়াল করেছেন মুকুল রোহতগি| এদিন সর্বোচ্চ আদালত বি এস ইয়েদুরাপ্পার চিঠি দেখতে চাইলে বিজেপির পক্ষ থেকে তা তুলে দেন মুকুল রোহতগি| বিচারপতি এ কে সিক্রি ও বিচারপতি এস এ বোবদের বেঞ্চে তিনি রাজ্যপালকে লেখা ইয়েদুরাপ্পার দু’টি চিঠি দেন| চিঠিতে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে কর্ণাটকে বিজেপির সরকার গড়ার দাবি জানানো হয়েছে| আদালতে রোহতগি বলেন, চিঠিতে বিধায়কদের নাম উল্লেখের প্রয়োজন না থাকলেও তা করেছেন ইয়েদুরাপ্পা| সেই সঙ্গে তিনি দাবি করেন, বিজেপি বিধায়কদের সমর্থণ প্রত্যাহারের জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছে| চিঠি পড়ার পর বিচারপতি সিক্রি বলেছেন, আমরা কোনও বিশেষ রাজনৈতিক দলের দ্বারা প্রভাবিত হচ্ছি না| আমাদের লক্ষ্য, রাজ্যে বৈধ দীর্ঘমেয়াদী সরকার গঠন করার প্রক্রিয়া নির্দিষ্ট করা| বিচারপতি বোবদে বলেছেন, যাকে বা যে দলকেই সরকার গড়ার জন্য ডাকা হোক, আস্থাভোটেই পাওয়া যাবে এই বিষয়ে চূড়ান্ত মতামত| এদিকে, ঘোড়া কেনা বেচা রুখতে কর্ণাটকের সমস্ত জেডি (এস) ও কংগ্রেস বিধায়কদের একজোট করে রাখা হয়েছে| একসঙ্গে তাঁরা একটি হোটেলে রয়েছেন| ব্যক্তিগত গাড়িতে নয়, তাঁরা একযোগে একসঙ্গে বাসে যাতায়াত করছেন| ঘর ভাঙার চেষ্টা করবে বিজেপি, এই আশঙ্কায় নিজেদের বিধায়কদের নিয়ে হায়দরাবাদে রওনা দিল কংগ্রেস ও জেডি (এস)| বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ১১৬ জন বিধায়ককে নিয়ে রওনা দেয় তিনটি বাস| ৫০০ কিলোমিটার পথ যেতে সময় লাগে প্রায় আট ঘন্টা| রাত সওয়া বারোটা নাগাদ প্রথমে রওনা দেয় দু’টি বাস| ঘন্টাখানেক পর কয়েকজন বিধায়ক চড়েন আর একটি স্লিপার বাসে| শুক্রবার সাত সকালেই তিনটি বাস বোঝাই করে হায়দরাবাদ পৌঁছন জোট বিধায়করা| বানজারা হিলসের পাঁচতারা হোটেলে তাঁদের রাখা হয়| এদিন হায়দরাবাদে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জেডি (এস) বিধায়ক জি টি দেবেগৌড়া বলেছেন, ‘১০০ কোটি হোক, বা ২০০ কোটি| আমাদের বিধায়করা কোথাও যাচ্ছেন না| আজ সন্ধ্যা, অথবা শনিবার সকালে আমরা সবাই বেঙ্গালুরু রওনা দেব|’ হিন্দুস্থান সমাচার/ রাকেশ
image