Hindusthan Samachar
Banner 2 बुधवार, दिसम्बर 12, 2018 | समय 16:15 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

(লিড)...গুয়াহাটিতে বিস্ফোরণ, আহত মহিলা-সহ পাঁচ, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে এটা ছোট্ট প্রদর্শন, দায় স্বীকার করে বলেছে আলফা

By HindusthanSamachar | Publish Date: Oct 13 2018 10:11PM
(লিড)...গুয়াহাটিতে বিস্ফোরণ, আহত মহিলা-সহ পাঁচ, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে এটা ছোট্ট প্রদর্শন, দায় স্বীকার করে বলেছে আলফা
গুয়াহাটি, ১৩ অক্টোবর, (হি.স.) : দুর্গাপূজার প্রাক-মুহূর্তে মহানগর তথা উত্তরপূর্বের প্রধান বাণিজ্যিক এলাকা ফ্যান্সিবাজার-পানবাজার সংলগ্ন ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে শুক্রেশ্বরঘাটের কাছে, মহেন্দ্রমোহন চৌধুরী (এমএমসি) হাসপাতালের পিছনে সংঘটিত বোমা বিস্ফোরণে মহিলা-সহ পাঁচজন ঘায়েল হয়েছেন। ঘটনার দায় স্বীকার করেছে অসমের উগ্রপন্থী সংগঠন আলফা-স্বাধীন। বলেছে, নিম্ন ক্ষমতাসম্পন্ন বোমা বিস্ফোরণ সংঘটিত করে ভারতীয় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদ জানিয়েছে তাঁর সংগঠন। আজ শনিবার বেলা প্রায় ১১:৫০ মিনিট নাগাদ এই বিস্ফোরণ সংঘটিত হয়েছে। বোমাটি এমএমসি পার্কিং স্থলের কাছে একটি কংক্রিট রেলিঙের নীচে রাখা ছিল। ঘটনার পর অকুস্থলে গিয়ে পরিস্থিতির খোঁজ নিয়েছেন গুয়াহাটির বিধায়ক তথা শিক্ষামন্ত্রী সিদ্ধার্থ ভট্টাচার্য, রাজ্যের পুলিশ-প্রধান কুলধর শইকিয়া, জেলাশাসক বীরেন্দ্র মিত্তাল, পুলিশ কমিশনার প্রদীপ শালৈ, এডিজিপি হরমিত সিং প্রমুখ, গুয়াহাটি পৌরনিগমের কমিশানর, সাধারণ ও পুলিশ প্রশাসনের শীর্ষ আধিকারিকবর্গ। আহতদের ভরতি করা হয়েছে এমএমসি হাসপাতালে। মন্ত্রী, ডিজিপি-সহ প্রশাসনের শীর্ষ আধিকারিকরা হাসপাতালে গিয়ে আহতদের খোঁজখবর নিয়েছেন। বেলা প্রায় ১১টা ৫০মিনিট। আচমকা বোমা বিস্ফোরণের বিকট শব্দে শুরু হয় চিৎকার চেঁচামেচি, দৌড়ঝাঁপ। বোমাটি বিস্ফোরিত হলে রেলিঙের ইট টুকরো টুকরো হয়ে এদিক-ওদিক ছুটতে শুরু করে। এগুলির ঘায়ে আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। তাঁদের মধ্যে পাঁচজনের জখম গুরতর বলে জানা গেছে। মালিগাঁওয়ের দম্পতি শঙ্কু দাস ও বিনীতা দাস সে সময় তাঁদের বাইকে যাচ্ছিলেন। বিস্ফোরণের সঙ্গে-সঙ্গে উভয়ে বাইক-সহ ছিটকে গিয়ে অনেক দূর গিয়ে পড়েন। এছাড়া এএস ০১ জিসি ৭৪৪২ নম্বরের একটি সিটিবাস সেখানে দাঁড়িয়েছিল। বাসের সাইড উইন্ডোর কাঁচ ভেঙে যাওয়ায় আহত হয়েছেন হাতিগাঁও সিডুবাড়ির জনৈক যাত্রী তাইফুউদ্দিন আহমেদ এবং বামুনিমৈদামের কল্পজ্যোতি তালুকদার। তাইফুদ্দিন এবং কল্পজ্যোতির মাথায় আঘাত লেগেছে। এছাড়া বাসের চালক শাহজাহান আলিও ঘায়েল হয়েছেন। তাঁর কানে আঘাত লেগেছে। তবে আহতরা বিপন্মুক্ত বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বিস্ফোরণের ফলে কংক্রিটের দেওয়াল চুরমার হয়ে গেছে। এতে একটি গাছও ভেঙে পড়েছে। ক্ষতি হয়েছে কয়েকটি বাইক এবং গাড়ির। এদিকে ঘটনার পর বোমা বিশেষজ্ঞ এবং পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকের দল ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে তন্ন তন্ন করে পরীক্ষা করেছে। এসকেভেটর লাগিয়ে অকুস্থলের মাটি খুঁড়ে দেখা হয়। গুয়াহাটির বিধায়ক তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী সিদ্ধার্থ ভট্টাচার্যও উপস্থিত হয়ে পুলিশ-প্রাধান কুলধর শইকিয়ার সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতির খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেছেন। উল্লেখ্য, দুর্গাপূজার প্রাক্কালে আজ শনিবার ছুটির দিন মহানগরের ব্যস্ততম বাণিজ্যিক এলাকা ফ্যান্সিবাজারে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ তাঁদের পরিবারবর্গকে নিয়ে ভিড় করেছেন পুজোর বাজার করতে। ইত্যবসরে এ ধরনের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এদিকে পানবাজার থানা থেকে প্রায় ৫০০ মিটার দূরে ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে পুলিশ-প্রধান কুলধর শইকিয়া বলেছেন, ঘটনা সম্পর্কে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। নামানো হয়েছে স্নিফার ডগ স্কোয়াড। কী ধরনের বিস্ফোরণ সংঘটিত করা হয়েছে তা-ও জানার জন্য সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন। আলফা-স্বাধীন এই বিস্ফোরের দায়িত্ব স্বীকার করেছে। এ প্রসঙ্গে উত্থাপিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে ডিজিপি শইকিয়া বলেন, যে বা যারাই এই কাণ্ড ঘটাক তা অত্যন্ত কাপুরুষোচিত। পুজোর প্রাক্কালে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে মানুষকে ভীতিগ্রস্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। মানুষের আনন্দ মাটি করার অধিকার কারোর নেই। পুজোয় কেউ যাতে নাশকতা ঘটাতে না পারে সে অনুযায়ী কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলেও জানান ডিজিপি। রহস্যজনক এই বিস্ফোরণ কীভাবে সংঘটিত হয়েছে সে সম্পর্কে নিশ্চিত তথ্য দিতে পারেননি তিনি। এদিকে, আজ মহানগরের শুক্ৰেশ্বরঘাটে সংঘটিত বোমা বিস্ফোরণের দায়িত্ব স্বীকার করেছেন আলফা-স্বাধীনের সেনাপ্রধান তথা সর্বেসর্বা পরেশ বরুয়া। টেলিফোনে বার্তালাপে আলফা-স্বাধীনের সেনাপ্রধান পরেশ বরুয়া বলেছেন, নিম্ন ক্ষমতার বোমা বিস্ফোরণ সংঘটিত করে ভারতীয় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদ জানিয়েছে তাঁর সংগঠন। পাশাপাশি জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) নবায়ন প্রক্রিয়ায় যারা বাগড়া দিচ্ছে তাদের সতর্ক থাকতে বিস্ফোরণের মাধ্যমে সতর্কবার্তা পাঠানো হয়েছে। তার বক্তব্য, নাগরিকত্ব সংশোধনী-১৬ বিল পাশ করিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার অসমে হিন্দু বাংলাদেশিদের সংস্থাপন দেওয়ার ষড়যন্ত্র করছে। আসম কখনও হিন্দু বাংলাদেশিদের বোঝা বহন করবে না। সংসদে এই বিল পাশ করালে অসমে আরও বড়ধরনের নাশকতা ঘটাতে দ্বিতীয়বার ভাববে না আলফা-স্বাধীন। পরেশ বরুয়া বলেছেন, জাতি-মাটি-ভিটে রক্ষার জন্যই গুয়াহাটিতে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। হিন্দু বাংলাদেশিদের সংস্থাপিত করতে গত দুদিন মাজুলির কাৰ্যনিৰ্বাহক কমিটির সভায় রাজ্য বিজেপি গৃহীত সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেই শনিবার গুয়াহাটির পানবাজার এলাকায় বোমা বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে বলে স্বীকার করে তার সংগঠনের স্থিতি স্পষ্ট করে দিয়েছেন উগ্রপন্থী সংগঠনের সৰ্বেসৰ্বা পরেশ বরুয়া। তিনি বলেছেন, ‘আজ সংঘটিত বিস্ফোরণের দায়িত্ব আমি স্বীকার করছি। কোনও নিৰ্দোষী মানুষ আমাদের লক্ষ্য ছিল না। আমাদের লক্ষ্য জাতি-মাটি-ভিটে রক্ষার কথা বলে ক্ষমতায় আসীন সরকারকে সতর্ক করা। তাই কোনও নিরীহ মানুষ যাতে আহত না হন, সেভাবেই বিস্ফোরণের পরিকল্পনা করেছিলাম আমরা। কিন্তু দুৰ্ভাগ্যবশত পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাঁদের আশু আরোগ্য কামনা করছি। পাশাপাশি আহত এবং তাঁদের পরিবারবর্গের কাছে ক্ষমাও চাইছি।’ বলেন, ‘যাঁরা ভাবেন আলফা-স্বাধীন দুর্বল হষ়ে গেছে, নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে, অসম রাজ্য আমাদেরই, আমাদের যা ইচ্ছে তা করব, তাদের জন্য এটা আমাদের ক্ষুদ্র প্ৰত্যুত্তর। এই প্ৰত্যুত্তরে যদি এঁরা সতর্ক না হন, তা হলে আমাকে অন্য পন্থা অবলম্বন করতে বাধ্য করা হবে।’ তিনি আরও বলেন, দুপুর ১২ নাগাদ সংযুক্ত মুক্তি বাহিনী অসম (আলফা-স্বাধীন) যে বিস্ফোরণ সংঘটিত করেছে তার লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য ছিল মহান। অসম-বিরোধীরা যাতে মাথা তুলতে না পারে তার জন্য এ ধরনের বিস্ফোরণ অবশ্যাম্ভাবী ছিল বলেও দাবি করেছেন আলফা-প্রথান প্ররেশ বরুয়া। অসমে বসবাস করে যাঁরা বা যে দল ও সংগঠন অসমকে ধ্বংস করতে ষড়যন্ত্ৰে লিপ্ত হয়েছেন ভবিষ্যতে এ ধরনের কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকতে তাঁদের সতর্ক করে দিয়েছেন উগ্রপন্থী সংগঠনের প্রধান সেনাধ্যক্ষ। পরেশের তাঁদের সতর্কবার্তা, এ ধরনের অসমিয়া জাতিধ্বংসী কাৰ্য যদি তাঁরা বন্ধ না করেন তা হলে আলফা-স্বাধীন আরও কঠোর পদক্ষেপ গ্ৰহণ করতে বাধ্য হবে। তিনি বলেন, ‘জাতি-ধৰ্ম নির্বিশেষে যে-ই হোন না কেন, বহিরাগতদের সংস্থাপনের বিরুদ্ধে তাঁদের সংগ্ৰাম অব্যাহত থাকবে। বলেন, আজকের ক্ষীণ বিস্ফোরণের মাধ্যমে হিন্দু বাংলাদেশিদের পক্ষাবলম্বনকারীদের সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। কোনও ভাবেই ভূমিপুত্র অসমিয়াদের নিঃশেষ করতে দেওয়া হবে না। পরেশ বরুয়া বলেন, রাষ্ট্ৰযন্ত্ৰ যদি নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ করে হিন্দু বাংলাদেশিদের বোঝা অসমের উপর চাপিয়ে দেওয়া হয় তা হলে তাঁদের সংগঠন নতুন পরিকল্পনা হাতে নেবে। হিন্দুস্থান সমাচার / এসকেডি
image