Hindusthan Samachar
Banner 2 सोमवार, जून 18, 2018 | समय 09:07 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

(লিড) ফের সংঘাত প্রকাশ্যে : বিশ্ব যোগ দিবস পালনে রাজ্যপালের নির্দেশ নিয়ে সরব শিক্ষামন্ত্রী

By HindusthanSamachar | Publish Date: Jun 14 2018 9:51PM
(লিড) ফের সংঘাত প্রকাশ্যে : বিশ্ব যোগ দিবস পালনে রাজ্যপালের নির্দেশ নিয়ে সরব শিক্ষামন্ত্রী
কলকাতা, ১৪ জুন (হি.স.) : ফের সরকারের সঙ্গে রাজ্যপালের সংঘাত প্রকাশ্যে চলে এল। বিশ্ব যোগ দিবস পালনের নির্দেশ দিয়ে উপাচার্যদের চিঠি দিয়েছিলেন রাজ্যপাল হলেন কেশরীনাথ ত্রিপাঠী। যা নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করলেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার তিনি বলেন, শিক্ষা দফতরকে এড়িয়ে সরাসরি উপাচার্যদের চিঠি দিয়ে ঠিক কাজ করেননি রাজ্যপাল। এ রাজ্যে ফের সরকারের সঙ্গে রাজ্যপালের সংঘাত প্রকাশ্যে চলে এল। রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানের ভূমিকায় ক্ষুদ্ধ শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তাঁর বক্তব্য, শিক্ষা দপ্তরকে এড়িয়ে সরাসরি উপাচার্যদের চিঠি দিয়ে ঠিক কাজ করেননি রাজ্যপাল। শিক্ষামন্ত্রীর প্রশ্ন, তৃণমূল জমানায় প্রতি বছর আয়ূষ দপ্তরের উদ্যোগে রাজ্যে বিশ্ব যোগ দিবস পালন করা হয়। তাই সরকারকে অন্ধকারে রেখে উপাচার্যদের কেন চিঠি পাঠালেন রাজ্যপাল? কেন্দ্রে পালাবদলের পর, প্রতি বছর ২১ জুন বিশ্ব যোগ দিবস পালন করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সরকার। দেশের সবকটি স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যাল কর্তৃপক্ষ বিশ্ব যোগ দিবস পালনের অনুরোধ জানিয়ে চিঠিও পাঠায় কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক। এবছর রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যদের আলাদা করে চিঠি পাঠিয়েছেন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠিও। চিঠিতে বিশ্ববিদ্যালগুলিতে বিশ্ব যোগ দিবস পালনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ঘটনায় রীতিমতো ক্ষুদ্ধ শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেন, শিক্ষা দফতরকে এড়িয়ে উপাচার্যদের চিঠি পাঠিয়ে ঠিক কাজ করেননি রাজ্যপাল। প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে লোকসভা ভোটে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে কেন্দ্রে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হন কেশরীনাথ ত্রিপাঠী। বছর চারেকের কার্যকালে বারবারই বিতর্কে জড়িয়েছেন তিনি। রাজ্যপালের ভূমিকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কয়েক মাস আগে মালদহের ডিভিশনাল কমিশনারকে চিঠি দিয়ে বৈঠক ডাকার প্রস্তাব দিয়েছিলেন রাজ্যপাল। বৈঠকে ডাকা হয়েছিল মুর্শিদাবাদের আইজিকে। এমনকী, বৈঠকে কী আলোচনা হবে, তাও চিঠিতে স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল। রাজ্যপালের বিরুদ্ধে এক্তিয়ার বর্হিভূত কাজের অভিযোগে তুলেছিল রাজ্য সরকার। বিষয়টি নিয়ে সংসদেও বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন শাসকদলের সাংসদরা। ফের একবার রাজ্যপালের সঙ্গে সরকার সংঘাতের পরিবেশ তৈরি হল। কেশরীনাথ ত্রিপাঠির বিরুদ্ধে মুখ খুললেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।–হিন্দুস্থান সমাচার / কাকলি
image